শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০৩:৫৩ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
জাতির পিতার সমাধিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নড়াইলে প্রবাসী ছোট ভাইয়ের স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগ বড় ভাইয়ের বিরুদ্ধে চৌহালীতে ব্লক গ্রান্ট কো-অর্ডিনেশন কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রৌমারীতে বাংলাদেশের সাম্যবাদী আন্দোলনের বিক্ষোভ সমাবেশ রৌমারীতে বাংলাদেশের সাম্যবাদী আন্দোলনের বিক্ষোভ মিছিল ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করলেন জেলা প্রশাসন সুন্দরগঞ্জে ছাত্রলীগ/যুবলীগের বাঁধারমুখে জাতীয় পার্টির বিক্ষোভ সমাবেশ পন্ড অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ সুন্দরগঞ্জ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে উলিপুরে সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার না করায় ব্যবসায়ীদের স্বতঃস্ফূর্ত মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা মাদারগজ ব্র্যাকের উদ্যোগে বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত

এ্যাকশন হিরো বীর মুক্তিযোদ্ধা  জসিমের ২৩ তম মৃত্যুবার্ষিকী।

নিজস্ব
  • আপডেট সময় : ৯ অক্টোবর, ২০২১
  • ৩০৪ বার পঠিত

এ্যাকশন হিরো বীর মুক্তিযোদ্ধা  জসিমের ২৩ তম মৃত্যুবার্ষিকী।
পর্দার নায়করাও যে সত্যিকার একজন নায়ক হবেন তা আমাদের কল্পনা প্রসূত ভাবনা। খলনায়ক থেকে নায়ক হয়ে ওঠা জসিম ছিলেন একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা,বাস্তবেই একজন দেশনায়ক, তা হয়তো আমাদের  অনেকের অজানা।
তবে, সম্প্রতি আরো একটি নতুন নামে প্রয়াত এই নায়কের পরিচয় উঠে এসেছে। সাম্প্রতিক অন্তর্জালে এই প্রয়াত চিত্রনায়ক ‘লটারি পাওয়া’ নায়ক হিসেবে আলোচনায় এসেছে। । তাঁর অভিনীত একাধিক সিনেমায় তাঁকে লটারি জিতে ভাগ্যের পরিবর্তন  এবং নিরুপায় হয়ে নিজের রক্ত বিক্রি করতে দেখা গেছে। একজন নায়ক তখন সার্থক হন যখন তার অভিনয়ের প্রতিফলন সমাজে ঘটে।

আশির দশকে ঢাকাই চলচ্চিত্রে দর্শকপ্রিয়তা অর্জন করেন খলনায়ক জসিম। তাঁকে বাংলা চলচ্চিত্রে অ্যাকশনধর্মী সিনেমার পথপ্রদর্শক মনে করা হয়। ক্যারিয়ারজুড়ে শোষিত-বঞ্চিত প্রান্তিক মানুষের প্রতিনিধি হিসেবে এই নায়ককে দেখা গেছে বড় পর্দায়।

মুক্তিযুদ্ধের পর ১৯৭২ সালে ‘দেবর’ সিনেমার মাধ্যমে চলচ্চিত্রে জসিমের আত্মপ্রকাশ। প্রথম সিনেমাতেই তাঁর অভিনয় পরিচালকদের নজর কাড়ে। পরের বছর ‘রংবাজ’ সিনেমায় অ্যাকশন ডিরেক্টর হিসেবে কাজ করেন। তবে, পরিচিতি পান দেওয়ান নজরুল পরিচালিত ‘দোস্ত দুশমন’ সিনেমায় খলনায়কের চরিত্রে অভিনয় করে। খলনায়ক চরিত্রের মাধ্যমে সিনেমায় অভিনয় শুরু করলেও পরবর্তীকালে নায়ক হিসেবে সফলতা পেয়েছিলেন।
জসিমের খলনায়ক হিসেবে অভিনয়ের সমাপ্তি ঘটে ১৯৮০ সালের শুরুর দিকে সুভাষ দত্তের পরিচালনায় ‘সবুজ সাথী’ সিনেমার মাধ্যমে। এ সিনেমার পর থেকে মৃত্যুর আগপর্যন্ত নায়ক হিসেবেই অভিনয় চালিয়ে যান।

বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় নায়ক জসিম ছিলেন একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধে দুই নম্বর সেক্টরে মেজর হায়দারের নেতৃত্বে লড়াই করেন তিনি।

নায়ক জসিমের পুরো নাম আবদুল খায়ের জসিম উদ্দিন। তিনি ১৯৫০ সালের ১৪ আগস্ট ঢাকার কেরানীগঞ্জের বক্সনগর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। লেখাপড়া করেন বিএ পর্যন্ত।

জসিমের প্রথম স্ত্রী ছিলেন ড্রিমগার্লখ্যাত নায়িকা সুচরিতা। পরে তিনি ঢাকার প্রথম সবাক ছবির নায়িকা পূর্ণিমা সেনগুপ্তার মেয়ে নাসরিনকে বিয়ে করেন । জসিমের তিন ছেলে রাতুল, রাহুল, সামি । যার মধ্যে রাতুল ও সামি ‘ওউনড’ ব্যান্ডের বেজিস্ট ও ড্রামার আর রাহুল ‘ট্রেইনরেক’ ব্যান্ডের গিটারিস্ট।[

১৯৯৮ সালের এই দিনে (৮ অক্টোবর) মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণজনিত কারণে না ফেরার দেশে পাড়ি জমান এক সময়ের এই অ্যাকশন হিরো জসিম।।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.


এ্রই রকম আরো সংবাদ