শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৯:২৭ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
কালিয়ায় শান্তিপূর্ণ ভাবে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সম্পন্নের লক্ষ্যে পুলিশ সুপারের ব্রিফিং কুড়িগ্রামে ইউপি নির্বাচন কেন্দ্রে কেন্দ্রে নির্বাচনী সামগ্রী বিতরন সুন্দরগঞ্জে রাত পোহালেই ভোট যুদ্ধ,কেন্দ্রে যাচ্ছে নির্বাচনি সরঞ্জাম গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে ভোট কেনা-বেঁচা ঠেকাতে রাত জেগে পাহারা! নির্বাচনী শেষ পথ সভায় হাজার হাজার ভোটারের ভালোবাসা সিক্ত নজমুল হুদা- সেবার ব্রতী হয়ে থাকতে চাই জনাব আলহাজ্ব আবু জাফর তালুকদার মমুকুলের মোরগ প্রতীক জয়ী হলে বদলে যাবে কুলাঘাট ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড পোমরা ইউপি সদস্য প্রার্থীর শেষ প্রচারণায় জনস্রোত ছাত্রলীগ নেতার হুমকি-নৌকার বিরুদ্ধে ভোট দিলে, এক ওয়ার্ডে পাঁচটা লাশ পড়বে’ নির্বাচনে পরাজিত হয়ে রাজাকার পুত্র আনিসুল ইসলামের কুকর্মের নীল নঁকশা

দেবিদ্বারে সরকারী খাস জমি দখলকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে আহত ছয়,থানায় মামলা গ্রেপ্তার দুই।

Admin
  • আপডেট সময় : ১৯ এপ্রিল, ২০২১
  • ৭১ বার পঠিত

দেবিদ্বারে সরকারী খাস জমি দখলকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে আহত অন্তত ছয়,থানায় মামলা উভয়পক্ষের গ্রেপ্তার দুই।

………………………………………………………………….
কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার ১১নং রাজামেহার ইউনিয়নের রাজামেহার বদল বাড়িতে সরকারি খাস জমি দখলকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয়পক্ষের অন্তত পক্ষে ৬জন আহত হয়েছে।এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, আব্দুল কাদেরের ছেলে ইউনিয়ন বিএনপির-ছাত্রদলের সভাপতি প্রার্থী ফুজায়েল ২০১৬ সালে পানি নিষ্কাশনের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি সরকারি খাল মাটি দিয়ে ভরট করে দখল করে ফেলে। যার ফলে খালের উভয় পাশের প্রায় ৩০০ পরিবারের ফসলি জমি সহ নিচু বসতবাড়ি গুলোতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয় তাতে প্রতিবছর সীমাহীন দুর্ভোগের শিকার হয় পরিবারগুলো। বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মীমাংসা করার জন্য এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তি বর্গের মাধ্যমে ফুজাইলকে বুঝিয়ে অন্তত পানি চলাচলের জন্য দখলকৃত সরকারি খাস ভূমির কিছু অংশ খনন করে দেওয়ার জন্য অনুরোধ করলেও সে এলাকার কাউকে তোয়াক্কা না করে উল্টো মামলা-হামলার ভয় দেখিয়ে আসছিল।

এলাকায় সমঝোতা করতে ব্যর্থ হয়ে মৃত সুরুজ মিয়ার ছেলে মোঃ কবির হোসেন উক্ত বিষয় নিয়ে উপজেলা ভূমি অফিসে অভিযোগ করলে এসি ল্যান্ড উল্লেখিত জায়গা পরিদর্শন করে এবং ভূমি অফিস থেকে উক্ত মসজিদের জায়গা মাপার জন্য সার্ভেয়ার পাঠায়। সার্ভেয়ার মসজিদের জায়গা মাপিয়া চলিয়া যাওয়ার পর ঘটনার দিন বিকাল বেলা ফুজায়েল ক্ষুব্ধ হয়ে এলাকাবাসীকে বিভিন্ন ভাষায় গালমন্দ শুরু করে এতে ওমান প্রবাসী ছাত্রলীগ নেতা আশিক এবং ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি কাওছার সহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিরা প্রতিবাদ করলে ফুজায়েল আরো ক্ষুদ্ধ হয়ে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে প্রতিবাদ করা লোকদের উপর তেড়ে আসে এতে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয় এবং সংঘর্ষ বাধে। এই ঘটনায় উভয় পক্ষ দেবিদ্বার থানায় দুইটি অভিযোগ দায়ের করে।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে দেবিদ্বার থানার পুলিশ পরিদর্শক মো: ইখতিয়ার ফুজায়েল এবং ওমান প্রবাসী আশিককে মামলা রেকর্ড করার কথা বলে থানায় ডেকে নিয়ে প্রায় পাঁচ ঘণ্টা বসিয়ে রেখে উভয়পক্ষের মামলা রেকর্ড করে ফুজায়েল এবং আশিককে কুমিল্লা কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রেরণ করে। এই বিষয়ে এসআই ইখতিয়ারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন সরকারি খাস জমিটি ফুজায়েলের দখলে ছিল এলাকাবাসী তাদের নিজেদের প্রয়োজনে অথবা মসজিদের প্রয়োজনে এটা ব্যবহার করতে চাচ্ছে কিন্তু ফুজায়েল তা দিচ্ছেনা l যার কারণে উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে।এর পর থানায় অভিযোগ হয়েছে আমি মামলা গ্রহণ করেছি এবং উভয় পক্ষের দুজনকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে প্রেরণ করেছি।

এই খবর এলাকায় জানাজানি হলে উভয় পক্ষের লোকজনের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয় এক পর্যায়ে ফুজায়েলের দখলকৃত সরকারি খাস ভূমিতে থাকা টিনসেডবেড়া গুলো উত্তেজিত জনতা জোর করে সরিয়ে ফেলে এতে আব্দুল কাদেরের পরিবার বাধা দিতে আসলে উভয়পক্ষের মধ্যে আবারও সংঘর্ষের সৃষ্টি হয় এতে অন্তত ছয়জন আহত হয় এদের একপক্ষ কে দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স অপর পক্ষকে কুমিল্লা সদর হাসপাতালে চিকিৎসা প্রদান করা হয়।

ভুক্তভোগী সদস্য রাজামেহার ইউনিয়ন কৃষক লীগের আহ্বায়ক কবির হোসেন জানান, বর্তমান জাহাঙ্গীর আলম চেয়ারম্যান ২০১৬ সালে ফুজায়েলকে তার দখলকৃত সরকারি এই খাস জমিটি সরকারি ভাবে লীজ এনে দেবে বলে তার কাছ থেকে তিন লক্ষ টাকা চুক্তি করে নিয়ে যায়। এই চুক্তির মধ্যে কথা ছিল দখলকৃত এই খাস জমি লীজ আনার পূর্বেই তাকে জোর করে দখল করে দেবে এবং ফুজায়েলের আপন ফুফাতো ভাই প্রায় ২০ বছরের ওমান প্রবাসে থাকা জামাল হোসেন এবং ফুজায়েলের ভাগিনা মরিচা গ্রামের দুলাল মিয়ার ছেলে শাজাহানকে ভূমিহীন দেখিয়ে সার্টিফিকেট প্রদানের মাধ্যমে আশ্রায়ন প্রকল্পের সরকারি ঘর তাদের নামে বরাদ্দ করিয়ে দেবে।

একাধিক সূত্রে জানা যায়, জাহাঙ্গীর চেয়ারম্যান যাদেরকে ভূমিহীন বলে সার্টিফিকেট প্রদান করেছে এদের প্রত্যেকের বসতবাড়ির জায়গাসহ ফসলি জমিও রয়েছে। জাহাঙ্গীর চেয়ারম্যানের এমন অসংখ্য অনিয়মের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করায় ওমান প্রবাসী আশিককে জাহাঙ্গীর চেয়ারম্যানের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় এসআই ইখতিয়ার থানায় ডেকে নিয়ে গ্রেপ্তার করেছে বলে অভিযোগ করেছে আশিকের বাবা কবির হোসেন। চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অভিযোগের বিষয়টি নিয়ে জানতে ১১নং রাজামেহার ইউনিয়ন এর বর্তমান জাহাঙ্গীর আলম চেয়ারম্যানের মুঠোফোনে একাধিকবার কল করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের মতামতকে উপেক্ষা করে চেয়ারম্যানের ক্ষমতা বলে এলাকার ৩০০ পরিবারের জলাবদ্ধতার কথা চিন্তা না করে সেই খাস ভূমিটি দখলে রাখার সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে বলেও অভিযোগ করেন কৃষকলীগ নেতা কবির হোসেন।

এই বিষয়ে ফুজায়েলের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, আমার উপর আনীত সমস্ত অভিযোগ মিথ্যে, আমি কারো উপর হামলা করেনি উল্টো তারা আমার এবং আমার পরিবারের উপর হামলা করেছে। আমার বাড়িঘর ভাঙচুর সহ ঘরে ডুকে লুটপাট করেছে । খাসের জায়গা ভরাট করা প্রসঙ্গে ফুজায়েল সাংবাদিকদেরকে বলেন, আমি প্রায় ৮ লক্ষ টাকা খরচ করে এই জায়গা ভরট করেছি সরকারের প্রয়োজনে আমি যে কোন সময় এই জায়গা ছেড়ে দেবো কিন্তু সরকার ছাড়া আমি অন্য কাউকে এই জায়গা ব্যবহার করতে দেবো না। এলাকাবাসীর দাবি পানি নিষ্কাশনের গুরুত্বপূর্ণ এই খালটি খনন করে জলাবদ্ধতা নিরসন করতে প্রশাসন যেন আন্তরিক ভাবে সহযোগিতা করে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


এ্রই রকম আরো সংবাদ