বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১০:৫৯ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
সেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান কর্তৃক কুড়িগ্রামে ৩০০০ পিচ কম্বল বিতরণ মান্দায় নাশকতা মামলার আসামি চেয়ারম্যান আত্মগোপনে, ভোগান্তিতে সেবাপ্রার্থীরা বিজিবি’র অভিযানে বেনাপোলে ১৯৯ বোতল ফেন্সিডিল ও নগদ অর্থ সহ গ্রেফতার-১ “জনতার চেয়ারম্যান মাসুদ রানা পাইলট” রাজীবপুরে ইউএনও চেয়ারম্যানের মাঝে উত্তেজনা, মাসিক সভা পন্ড ইউএনও বললেন, ‘হজ্ব কইরা কি হয়’! মানবতার ফেরিওয়ালার কম্বল বিতরণ মান্দার তেঁতুলিয়া ইউনিয়নে আমবাগান থেকে ১৮টি ককটেল উদ্ধার করছে পুলিশ সীমান্তে ঘুরছে স্বর্ণ ১৫ বিজিবির হানা সৈয়দপুর উপজেলা ও কিশোরগঞ্জ মধ্যস্থল কদমতলীতে অনলাইন জুয়ার জমজমাট আসর নাটোরের সিংড়ায় ৪২ কেজি কষ্টি পাথরের বিষ্ণু মূর্তি উদ্ধার

‘পাকিস্তান চোরাবালিতে আটকে গেছে, শ্রীলঙ্কার মতো পরিণতি হবে’

রিপোর্টার নাম:
  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ২০ জানুয়ারী, ২০২৩
  • ১৬ বার পঠিত:

পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, পাকিস্তান চোরাবালিতে আটকা পড়ে গেছে। এখান থেকে বেরিয়ে আসার একমাত্র উপায় অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন। অন্যথায় পাকিস্তানের পরিস্থিতি শ্রীলঙ্কার মতো হবে বলে তিনি সতর্ক করে দেন। বিবিসির সঙ্গে এক সাক্ষাতকারে একথা বলেন তিনি।

ইমরান খান মনে করেন, দেশটিতে ২০২৩ সালের এপ্রিলে সরকার আগাম নির্বাচন দিতে বাধ্য হবে। তিনি আরও বলেছেন , ‘নতুন সামরিক প্রধানের’ সঙ্গে তার কোনও সম্পর্ক নেই।

বিবিসি উর্দুর সংবাদদাতা উসমান জাহিদ, ইমরান খানের একটি বিশেষ সাক্ষাত্কার নেয়ার সময় তার সামনে প্রশ্ন রাখেন যে তিনি দেশটির অর্থনৈতিক ও সার্বিক উন্নয়নের বিষয়ে সরকারের সাথে কথা বলতে প্রস্তুত কিনা?

জবাবে ইমরান খান বলেন, এই সরকার কোন নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় আসেনি। বরং তারা নিলামের মাধ্যমে ক্ষমতায় এসেছে।

তিনি অভিযোগ করেন, প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরীফ সংসদ সদস্যদের কেনা-বেচার মাধ্যমে ক্ষমতায় এসেছেন। তিনি ২০-২৫ কোটি রূপি দিয়ে এমপিদের ভোট ক্রয় করেছিলেন বলে অভিযোগ করেন ইমরান খান।

এক্ষেত্রে তৎকালীন সেনাপ্রধান জেনারেল বাজওয়া শাহবাজ শরীফকে সমর্থন জুগিয়েছেন বলে উল্লেখ করে ইমরান খান।

বাজওয়ার বিরুদ্ধে ১১০০ বিলিয়ন রূপি দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে – একথা উল্লেখ করে ইমরান খান বলেন, পাকিস্তানের অর্থনীতি ডুবে গেছে।

তিনি বলেন, পাকিস্তান একটি চোরাবালিতে আটকা পড়েছে। এখান থেকে বেড়িয়ে আসার একমাত্র উপায় অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন। অন্যথায় পাকিস্তানের পরিস্থিতি শ্রীলঙ্কার মতো হবে বলে তিনি সতর্ক করে দেন।

নির্বাচন দিতে বাধ্য করা হবে?

পাকিস্তানের কিছু রাজনীতি বিশ্লেষক মনে করেন, ইমরান খানের তেহরিক-ই-ইনসাফ আগামী আগস্ট মাসে সাধারণ নির্বাচন চায়। কিন্তু সরকারের মন্ত্রীরা বারবার ঘোষণা করেছেন যে পার্লামেন্ট তার মেয়াদ শেষ করবে এবং অক্টোবরে নতুন সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

ইমরান খান বলেন, বর্তমান সরকারের সাথে সম্পৃক্ত মানুষজন আইনের শাসনকে ভুলুন্ঠিত করেছে। তারা নিজেদেরকে আইনের ঊর্ধ্বে রেখেছে। নিজেদের করা সব চুরি ও দুর্নীতি মাফ করে দিয়েছে।

শাহবাজ, নওয়াজ, জারদারি, মরিয়ম – সবাই মামলা থেকে অব্যাহতি পেয়েছে। তো এর চাইতে বড় জুলুম আর কী হতে পারে? যতো সময় যাবে, তাদের উদ্দেশ্য নিজেদের বিরুদ্ধে মামলা শেষ করা।

ইমরান খান বলেন, ‘এই মুহূর্তে দুই মাস অনেক দূরে মনে হতে পারে। আপনি অগাস্টের কথা বলছেন। কিন্তু আমি এখনকার কথা বলছি। আমাদের অর্থনীতি ভেঙে পড়ার উপক্রম হয়েছে। রিজার্ভ আছে মাত্র চার বিলিয়ন ডলার। বন্দরে পণ্য পড়ে আছে কিন্তু খালাস করা যাচ্ছে না। জিনিসপত্রের দাম বাড়ছে, বেকারত্ব বাড়ছে, কারখানা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে।’

এমন অবস্থায় এই সরকার আরো দুই মাস কিভাবে পার করবে সে প্রশ্ন তোলেন ইমরান খান। তার ধারণা হচ্ছে, পরিস্থিতি যাই হোক না কেন সরকার এপ্রিলের মধ্যে নির্বাচন দিতে বাধ্য হবে।

২০২৩ সালের এপ্রিলে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার বিষয়টি আরেকটি কারণে তাৎপর্যপূর্ণ হবে কারণ ঠিক এক বছর আগে, একই মাসে, পার্লামেন্টে ইমরান খানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব পাস হয়েছিল।

সামরিক নেতৃত্বের সাথে সম্পর্ক নেই

সাধারণ মানুষের মতামত হল, রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার কারণে সরকার অর্থনৈতিকভাবে কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারছে না এবং কিছু পর্যবেক্ষক দাবি করেছেন যে তেহরিক-ই-ইনসাফের প্রচারণা এই অস্থিতিশীলতাকে আরও বাড়িয়ে দিয়েছে।

জবাবে ইমরান খান বলেন, ‘গত সতের বছরের মধ্যে পাকিস্তানে তার সরকারের অর্থনৈতিক সাফল্য সবচেয়ে বেশি ছিল। কেউ তাকে( সাবেক সেনাপ্রধান জেরেল বাজওয়া) জিজ্ঞেস করুক – কেন তিনি আমাদের সরকারকে উৎখাত করলেন?’

ইমরান খান প্রশ্ন তোলেন, তার সরকার কী এমন ভুল করেছিলে যে তাদের টেনে নামানো হলো? তিনি বলেন, ‘আমি এবং শওকত তারিন (তৎকালীন অর্থমন্ত্রী) একসাথে জেনারেল বাজওয়াকে বলেছিলাম, আপনি যদি এই ষড়যন্ত্র সফল করতে রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা তৈরি করেন, তবে দেশের অর্থনীতি কেউ সামলাতে পারবে না। আর সেটাই হয়েছে।’

ইমরান বলেন, তার সরকারের পতন ঘটানোর পরে বাজারে বিনিয়োগকারীরা আস্থা হারিয়েছে। দেশে বিশৃঙ্খলা শুরু হয়ে গেছে। কারণ যারা ক্ষমতায় এসেছে তাদের কোন রোডম্যাপ নেই।

তার ভাষায়, ‘জেনারেল বাজওয়া তাদের সাথে মিলে যা করেছে, কোন শত্রুও পাকিস্তানের সাথে তা করতে পারেনি।’

ইমরান খানকে প্রশ্ন করা হয়, নতুন সেনাপ্রধান জেনারেল আসীম মুনিরের সাথে তিনি এবং তার দলের সম্পর্ক কেমন?

জবাবে ইমরান খান বলেন, ‘দেখুন, এখন আমাদের সাথে নতুন সামরিক নেতৃত্বের কোন সম্পর্ক নেই।’

তেহরিক-ই-ইনসাফ চেয়ারম্যান হিসেবে, ইমরান খান স্বীকার করেছেন যে তিনি অনেক বিষয়ে তার অবস্থান পরিবর্তন করেছেন, কিন্তু তালেবানের সাথে আলোচনার বিষয়ে তার অবস্থান কমবেশি একই নীতিতে রয়ে গেছে। আর সেটি হল, শান্তি, আলোচনা এবং পুনর্বাসন।

সূত্র: বিবিসি বাংলা

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2022  A2zbarta.Com
Design & Development BY Hostitbd.Com