শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০২:২৯ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
জাতির পিতার সমাধিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নড়াইলে প্রবাসী ছোট ভাইয়ের স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগ বড় ভাইয়ের বিরুদ্ধে চৌহালীতে ব্লক গ্রান্ট কো-অর্ডিনেশন কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রৌমারীতে বাংলাদেশের সাম্যবাদী আন্দোলনের বিক্ষোভ সমাবেশ রৌমারীতে বাংলাদেশের সাম্যবাদী আন্দোলনের বিক্ষোভ মিছিল ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করলেন জেলা প্রশাসন সুন্দরগঞ্জে ছাত্রলীগ/যুবলীগের বাঁধারমুখে জাতীয় পার্টির বিক্ষোভ সমাবেশ পন্ড অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ সুন্দরগঞ্জ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে উলিপুরে সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার না করায় ব্যবসায়ীদের স্বতঃস্ফূর্ত মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা মাদারগজ ব্র্যাকের উদ্যোগে বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত

রাজিবপুরে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অসংখ্য দুর্নীতির অভিযোগ

Md Zahidul islam
  • আপডেট সময় : ১ আগস্ট, ২০২২
  • ২৭০ বার পঠিত

রাজিবপুর ( কুড়িগ্রাম ) সংবাদদাতাঃ মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষ্যে বন্যা কবলিত এলাকায় অসহায় মানুষের মাঝে খাদ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক রাজিবপুর ইউনিয়নের বরাদ্দ সাইলোর  ড্রাম পাইনি ভুক্তভোগীরা । হত দরিদ্র ও বন্যা কবলিত এলাকার জন্য সাইলো পাইরোটি অনুমোদিত তালিকায় সুবিধাভোগীদের মাঝে বিতরণ না করে তা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে রাজিবপুর ইউপি চেয়ারম্যান মিরন মোঃ ইলিয়াসের বিরুদ্ধে ।  এছাড়াও মুজিববর্ষ উপহারের ভিজিএফ এর চাল বিতরনে দুর্নীতি অভিযোগ পাওয়া যায়। প্রত্যেক বিতরণে সময় সুবিধাভেগীদের যে স্লিপ দেওয়া হয় সেই স্লীপ ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে গেলে জানা যায় চাল/ড্রাম শেষ । সর্বশেষ রানা নামের এক ব্যক্তির ওয়ারিশ সার্টিফিকেট নিয়ে বির্তকের সৃষ্টি হয়েছে । একই ব্যক্তির বিষয়ে দুটি  ওয়ারিশ সার্টিফিকেট দেওয়া হয়েছে । একটি ওয়ারিশ সার্টিফিকেটে রানা মিয়া নামের  ব্যক্তি পুত্র হিসেবে তালিকাতে যুক্ত থাকলেও অপর আরেকটি  ওয়ারিশ সার্টিফিকেটে  রানা মিয়াকে বাদ দেওয়া হয়েছে । প্রথমত একটি ফেজবুক পেইজ থেকে রানা মিয়া ওয়ারিশ সার্টিভেকেটের জন্য ২০ হাজার টাকা ঘুষ নেওয়ার কথা জানালেও পরে আরেকটি বিবৃতিতে অশিকার করে ।  রাজিবপুর সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মিরন মোঃ ইলিয়াস চেয়ারম্যানের দায়িত্ব গ্রহনের পর থেকেই ক্ষমতার অব্যবহার করে বিভিন্ন উন্নয়ন মুলক কর্মকাণ্ড বাস্তবায়ন না করে সিংহভাগ লোপাট করে আসছে । এছাড়াও নানা দুর্নীতে লিপ্ত হয়ে পড়েছেন তিনি। চেয়ারম্যানের দুর্নীতিতে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন ইউনিয়নবাসী ।

সাইলোর  ড্রামের অনিয়মের বিষয়ে অসংখ্য ভুক্তভোগীর কাছে থেকে বিভিন্ন তথ্য পাওয়া যায় ।
রফিকুল নামে এক ব্যক্তি জানায়, আমার বাড়িতে মোট দুইটা নাম আছে । আমি একটাও ড্রাম পাইনাই । সাইলোর না পেয়ে আমি রাজিবপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও ডিসি বরাবর অভিযোগ দিয়েছি ।
মনির হোসেন নামে এক ব্যক্তি জানায়, আমার মায়ের নাম তালিকাতে ছিল ।  তিন দিন পরিষদ ঘুরে ও সাইলো ড্রাম পাইনি । আমাদের বাড়িতে এখনও  স্লীপ আছেই ।
এ বিষয়ে রাজিবপুর উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা জানায়, সাইলো নামের তালিকা তো আমরা জানি না । আমরা শুধু ডিওর পন্য দেই , তালিকা করবে চেয়ারম্যান,  চেয়ারম্যান  ভালো জানার কথা ।
এ বিষয়ে রাজিবপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার নম্বরে ফোন করলে নম্বর বন্ধ পাওয়া যায় ।
রাজিবপুরে ইউপি চেয়ারম্যান মিরন মোঃ ইলিয়াসের দুর্নীতির অভিযোগ গুলোর বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি নিজেকে নির্দোষ হিসেবে দাবি করেন এবং কিছু প্রশ্ন এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন । সাইলোর  ড্রামের অনিয়মের বিষয়ে বলেন, সাইলোর লিষ্ট অনুযাই বিতরণ করা হয়েছে । এখন নতুন পরিষদ হওয়ায় আগের মেম্বরদের লিষ্ট ও পরের মেম্বরদের লিষ্টে কিছু গড়মিল হয়েছে । তালিকায় নাম আছে এমন যারা পাইনি বলছে, তারা মিথ্যা বলছে । রাতে কোন সাইলোর বিতরণ করা হইনি । আমার জানামতে, রাজিবপুর সদর মেম্বর ও মহিলা মেম্বর নামে ভ্যানে ড্রাম উঠাইছিল ।
 
এ বিষয়ে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ কামরুল আলম বাদল জানায়, আমাদের সময়ে যে নামের তালিকা করা হয়েছিল সে সব পরিবর্তন করার আসলে সুযোগ নেই । কোন ভুলত্রুটি করলে সে দায়ভার তাদেরকে নিতে হবে । এই তালিকা অনেক উপরে চলে গেছে তাই পরিবর্তন করার  সুযোগ নেই ।
 
এ বিষয়ে রাজিবপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) অমিত চক্রবর্ত্তী নম্বরে ফোন করেও তাকে পাওয়া যায়নি ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.


এ্রই রকম আরো সংবাদ